ছাত্রদের জন্য ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে Online আয় করার সহজ পদ্ধতি ২০২১

ছাত্রদের জন্য ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে Online আয় করার সহজ পদ্ধতি ২০২০
পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি

আপনি যদি একজন শিক্ষার্থী হয়ে থাকেন! আর আপনি যদি অনলাইনে আয় করার কথা ভাবতেছেন! তাহলে আপনি ঠিক জায়গায় এসেছেন। কারণ আমরা এখানে প্রযুক্তি বিষয়ক আর্টিকেলের এর পাশাপাশি অনলাইনে আয়ের নানা রকম পদ্ধতি নিয়ে বিভিন্ন আর্টিকেল লিখে থাকি। আর আমরা আজকে ছাত্রদের জন্য ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে Online আয় করার সহজ পদ্ধতি ২০২১ নিয়ে আলোচনা করবো।

অনেকে ভাবেন যে অনলাইনে কি ইনকাম করা যায়? যারা এখনো এই প্রশ্নের মধ্যে আছেন আমি তাদেরকে বলছি, আপনারা বর্তমান সময়ের সাথে মিলিয়ে চলতে পারেন নি। কেননা বর্তমান সময়ে যে বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে বিভিন্ন কাজ করে রোজগার করা যায় সেটা আর কারো অজানা নয়। যাইহোক কথা না বাড়িয়ে চলে যাচ্ছি আসল কথায়।

আপনি যদি একজন ছাত্র হয়ে থাকেন। তবে আপনি আপনার পড়ালেখার পাশাপাশি কিছু সময় করে প্রতিদিন অনলাইন থেকে আয় করতে পারেন।

ছাত্র ছাত্রীদের জন্য অনলাইনে আয়ের এর সবচেয়ে সহজ উপায়

অনলাইন থেকে কিভাবে আয় করা যায় সে ব্যাপার গুলির মধ্যে যতগুলো বিষয়ে নিচে লিখেছি এই সবগুলো থেকে আপনি আয় করতে পারবেন। আর আমি বর্তমানে ব্লগিং এ কাজ করছি। তাছারা আপনি নিচে আলোচিত যেকোনোটির মাধ্যমে আয় করতে পারেন। এটা সম্পূর্ণ আপনার উপর।

ব্লগিং

অনলাইনে আয় করার জন্য বর্তমানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা যত ধরনের কাজ আছে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ এবং ভালো পরিমাণে ইনকাম করার পদ্ধতি হচ্ছে ব্লগিং করে ইনকাম করা আপনার যদি লেখা-লেখি করতে ভালো লাগে তবে আপনি ব্লগিং শুরু করতে পারেন।

ব্লগিং করে ইনকাম করার জন্য আপনাকে যা যা প্রয়োজন তা হচ্ছেঃ

আপনার ব্যক্তিগত একটি ওয়েবসাইট, এবং টাকা ইনকাম করার জন্য এফিলিয়েট লিংক অথবা গুগল এডসেন্স। আপনি যদি ব্লগিং করে ইনকাম করতে চান তাহলে আমাদের এই লিংকটি দেখতে পারেন। আপনি ব্লগিং করে অনলাইন হতে কিভাবে আয় করবেন এখানে বিস্তারিত আলোচনা করা রয়েছে।

লিংকঃ ফেসবুক এবং ইউটিউব আবিষ্কারের কাহিনী

ইউটিউব

অনলাইন দুনিয়ায় গুগলের পরেই রয়েছে ইউটিউব।পৃথিবীর মধ্যে সেরা ও প্রথম ভিডিও সার্চ ইঞ্জিন ইউটিউব বর্তমানে বাংলাদেশে হতে অনেক ছেলেমেয়েরা ইউটিউব থেকে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে। এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই যে আপনি যদি লেগে থাকে ইউটিউবিং করেন তাহলে আপনি ইউটিউব থেকে অবশ্যই সফল হতে পারবেন।

একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে ভিডিও আপলোড করতে পারেন । ভিডিও আপলোড করে টাকা ইনকাম করতে পারেন।পছন্দ মত ক্যাটাগরিতে আপনি যে বিষয়ে ভাল জানেন । যে বিষয়ে লোকজনকে জানাতে আপনার ভাল লাগে । সে বিষয়ে ভিডিও আপলোড করতে পারেন । যদি ভিডিও গুলিতে ভাল ভিউ , লাইক , শেয়ার আসে । লোকজন যদি আপনার চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করে ।তবে আপনি ইউটিউব থেকে আয় করতে পারবেন ।

ইউটিউব আপনার ভিডিও গুলির উপর অ্যাড দিবে । অ্যাড থেকে আপনিও আয়ের একটি অংশ পাবেন।অন্যান্য মার্কেটপ্লেস এর তুলনায় ইউটিউব থেকে ইনকাম করা খুবই সহজ তবে বর্তমানে ইউটিউব এর আপডেট আনার পর অ্যাডসেন্স মনিটাইজ পেতে বা গুগল এডসেন্স এর এড শো করতে আপনাকে অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। কেননা ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে হলে YouTube এর কিছু নীতিমালা আছে সেই নীতিমালা আপনাকে অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। আপনি যদি ব্লগিং করেন তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার কোনো ধরাবাধা নিয়ম থাকবে না আপনার ব্লগে যদি 5 থেকে 10 জন ভিজিটর থাকে তারপরও গুগল এডসেন্স এর এড আপনার ওয়েবসাইটে দেখাবে। কিন্তু ইউটিউব এর বেলায় আপনাকে অবশ্যই 1 হাজার সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে এবং 4 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম থাকতে হবে।

লিংকঃ সফটওয়্যার আপডেট এবং আপগ্রেডের মধ্যে পার্থক্য

এফিলিয়েট মার্কেটিং

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করাটা বর্তমান সময়ে সব থেকে বেশি লাভ জনক । ব্লগার দেড় মধ্যে সবচেয়ে প্রচলিত উপায় হিসেবে প্রচলিত। অ্যামাজন ফ্লিফকার্ড স্নাপডিল এই গুলি অনলাইন শপিং মার্কেট প্লেস । এদের সবার একটা Affiliate Marketing - এফিলিয়েট মার্কেটিং কার্যক্রম বা প্রোগ্রাম আছে। অনলাইনে আয়ের সহগ পদ্দতি এফিলিয়েট মার্কেটিং অনেকটা কমিশন ব্যবসা মতই।

এফিলিয়েট প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে আপনি তাদের যে কোন পণ্য বিক্রি করার জন্য লিংক নিতে পারেন। আপনি লিংকটাকে যেকোনো যায়গায় প্রমোট করতে পারেন। আপনার ফেসবুক গ্রুপে লিঙ্ক শেয়ার করতে পারেন । হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে লিঙ্ক শেয়ার করতে পারেন। টুইটারেলিঙ্ক শেয়ার করতে পারেন ।

এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে আয় করা যায় !

ইউটিউব চ্যানেল অথবা আপনার ব্লগে লিঙ্ক শেয়ার করতে পারেন। আপনার লিংক থেকে যদি পণ্যটি কেউ ক্রয় করে। তবে আপনি একটা নির্দিষ্ট কমিশন পাবেন। পণ্যের ধরন অনুসারে কমিশন ২% থেকে ১৫% পর্যন্ত । কিছু ক্ষেত্রে আরও বেশি।

অনলাইন শপিং মার্কেট প্লেস গুলির কমিশন রেট অলাদা আলাদা ।ধরুন কেউ মোবাইল 2% দিচ্ছে আবার কেউ 5% দিয়ে থাবে ।বই বিক্রির ক্ষেত্রে কমিশন একটু বেশি পাওয়া যায়। এটাও অনলাইন আয় করার একটি ভাল উপায়। আপনি অ্যামাজন ফ্লিফকার্ড স্নাপডিল ছাড়াও আরও অনেক অনলাইন শপিং কম্পানি আছে । আপনি যে কারো Affiliate Marketing - এফিলিয়েট মার্কেটিং প্রোগ্রাম এ অ্যাকাউন্ট তৈরি করে শুরু করতে পারেন আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং ।

ই কমার্স

বর্তমানে ইন্টারনেট যুগে অনলাইন থেকে আয় করার একটি অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ই কমার্স। ই-কমার্স বলতে আমরা স্বাভাবিক ভাবে বুঝিয়েছি অনলাইন থেকে কেনাকাটা করা। আপনি যদি অনলাইন থেকে কেনাকাটা করেন তখন অবশ্যই সেটি যে কোন একটি ওয়েবসাইট থেকে কিনতে হয় এবং সে ওয়েবসাইট অনার আপনাকে আপনার প্রোডাক্ট পৌঁছে দেয়। সেরকম ভাবে আপনি যদি একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট বা একটি ই-কমার্স ব্যবসার মালিক হতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে এবং আপনি যে সমস্ত পণ্যগুলো বিক্রি করবেন সে সমস্ত পণ্য গুলো আপনাকে নিজ দায়িত্বে কাস্টমারের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। কাস্টমাররা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনাকে কোন প্রোডাক্ট অর্ডার করবে সে অনুযায়ী আপনাকে কাজ করতে হবে। এর জন্য আপনাকে কাস্টমার এর কাছ থেকে বিশ্বস্ততা অর্জন করতে হবে। ই-কমার্স ওয়েবসাইটের জন্য আপনি, ডিজিটাল প্রোডাক্ট ইউজ করতে পারেন।

আপওয়ার্ক

এখন আসছে আপনি কাজ করবেন কিন্তু ইনভেস্ট করবেন না তাহলে আপনার জন্য মার্কেটপ্লেস। বর্তমান অনলাইনে প্রচুর পরিমাণে মার্কেটপ্লেস রয়েছে যেখানে আপনি কাজ করে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

কিন্তু আমি সব গুলো নিয়ে আলোচনা করব না। আমি জনপ্রিয় দুটি মার্কেটপ্লেস নিয়ে আলোচনা করব সেটি হচ্ছে আপওয়ার্ক এবং ফ্রিল্যান্সার। আপনি যদি আপওয়ার্কে কাজ করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে যেকোনো একটি বিষয় হতে হবে। যেমন আপনি যদি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হন তাহলে আপনি গ্রাফিক্স এর কাজ করতে পারবেন। অনুরূপভাবে,

  • আর্টিকেল রাইটিং
  • ওয়েব ডিজাইন
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  • অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ
  • ইমেইল মার্কেটিং
  • এস ই ও

এটাতে বিষয়ে কাজ করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে অবশ্যই যে কোন একটি বিষয়ে অনেক পারদর্শী হতে হবে। বিভিন্ন দেশের লোকের সাথে কমিউনিকেশন এর জন্য যোগাযোগের জন্য ভাল ইংরেজি জানতে হবে।

ফ্রিল্যান্সার

অতঃপর আসছি ফ্রিল্যান্সার। ফ্রিল্যান্সার ইন্টারনেট ভিত্তিক একটি আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান। এখানে বিভিন্ন লোক ফ্রিল্যান্সার হায়ার করে/ ভাড়া করে তাদের নিজের কাজ করিয়ে নেয়। ফ্রিল্যান্স আপওয়ার্ক এর মতই একটি আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেস।

আপনি অনলাইনে আয় বিস্তারিত জানতে চাইলে অথবা অনলাইনে আয় করতে চাইলে আমাদের এই ওয়েবসাইটের অনলাইনে আয় অপশনটিতে ক্লিক করে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকাম করতে হলে কী করতে হবে?

আপনাকে অনলাইনে করা যায় এমন কাজ জানতে হবে বা শিখতে হবে। অনলাইন মার্কেটপ্লেছ গুলিতে হাজারো কাজ রয়েছে আপনার জন্য । জনপ্রিয় মার্কেট প্লেস গুলি হল Upwork.com 🤪 Fiverr.com 😍 Freelancer.com। এছাড়াও আরও অনেক মার্কেট প্লেছ আছে আপনি অনলাইনে আয়ের সহয পদ্ধতি খুজে নিতে পারেন। আপনি ফটোশপ, ফটো এডিটিং ,ওয়েব ডিজাইন ,ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ইউটিউব ভিডিও দেখে অথবা বিভিন্ন ব্লগ পড়ে শিখতে পারেন ।

ডাটা এন্ট্রি

আপনি কি একজন শিক্ষিত বেকার। অনলাইনে করার মত কোন কাজ জানেন না। তাহলেও ডাটা এন্ট্রি থেকে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন ।

আপনিও আয় করতে পারেন অনলাইনে আয়ের সহগ পদ্দতি Article Writing বা ডাটা এন্ট্রির মাধ্যমে।আপনি দুই ভাবে কাজ করতে পারেন ।

চাকরি হিসাবে অথবা একজন লেখক হিসাবে। Article এর উপর ভিত্তি করে আপনাকে টাকা প্রদান করা হবে ।

লক্ষ্য করে থাকবেন প্রতিটি নিউজ চ্যানেলের একটি করে ওয়েবসাইট আছে। তাদের প্রতিদিন বিভিন্ন ধরণের আর্টিকেল পাবলিশ করতে হয় ।

বর্তমান সময়ে আপনি ইংলিশ অথবা বাংলায় লিখতে পারেন । অনলাইনে অনেক ওয়েবসাইট আছে যাদের অনেক Article Writing করতে হয় ।

অনলাইন মার্কেটপ্লেছ গুলিতে Article Writing বিষয়ক বিভিন্ন ধরণের কাজ আছে । আপনি আপনার পছন্দ মত অপশনটি দেখে নিবেন । এবং সেখানে কাজ শুরু করতে পারেন।

প্রতিদিন কতটুকু সময় কাজ করতে হয়?

আপনি যদি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে যদি আপনি বলেন প্রতিদিন কতটুকু সময় দিতে হয় সেটা আপনার জন্য মাইনাস পয়েন্ট। কেননা আপনি কাজ করার প্রথমে আপনি সময় নিয়ে ভাবছেন। আমি প্রথম যখন অনলাইনে কাজ শুরু করি এবং ব্লগিং স্টার্ট করি তখন প্রথমত আমি প্রতিদিন 4 থেকে 6 ঘন্টা সময় দিতাম। তখন যে পরিমানে আয় হতো বর্তমানের সপ্তাহে 10 থেকে 12 ঘন্টা সময় দেই আমার আয় এর সংখ্যাটা পূর্বের থেকে দ্বিগুন। এখন ভেবে দেখুন আপনার কতটুকু সময় লাগবে বা কতটুকু সময় নিয়ে আপনি কাজ করতে পারবেন।

বলতে গেলে এখানে ধরাবাঁধা কোনো সময় নেই যে আপনাকে এতটা সময় দিতেই হবে। আপনি যেরকম সময় দিবেন যে রকম স্টাডি করবেন যে রকম ঘাটাঘাটি করবেন সে অনুযায়ী আপনি ফলাফল পাবেন। আপনি কাজ করুন আমি আপনার সাথে আছি। প্রয়োজন হলে নিচের কমেন্ট বক্সএ কমেন্ট করতে পারেন।

আপনার কোন পরামর্শ বা সাহায্যের দরকার হলে আমাদের অবশ্যই কমেন্ট করবেন।

☞ আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন☜

0 Comments

Oldest